Homeইসলামিক গল্পনামাজের রাকাত সমূহ ও সহিহ্ ভাবে পড়ার নিয়ম¡!!!…

নামাজের রাকাত সমূহ ও সহিহ্ ভাবে পড়ার নিয়ম¡!!!…

بسم الله الرحمن الرحيم
নামাজের রাকাত সমূহঃ (1) ফজর :– 4 রাকাত । পাঁচ ওয়াক্ত ………….প্রথম 2 রাকাত সুন্নাত ………….পরের 2 রাকাত ফরজ ।। (2) জোহর :– 12 রাকাত । …………..প্রথম 4 রাকাত সুন্নাত …………..পরের 4 রাকাত ফরজ …………..এরপর 2 রাকাত সুন্নাত …………..এবং 2 রাকাত নফল ।। (3) আছর :– 8 রাকাত । …………..প্রথম 4 রাকাত সুন্নাত ………….পরের 4 রাকাত ফরজ ।। (4) মাগরীব :– 7 রাকাত । ……………প্রথম 3 রাকাত ফরজ …………..পরের 2 রাকাত সুন্নাত …………..এবং 2 রাকাত নফল ।। (5) এশা :– 15 রাকাত । ………..প্রথম 4 রাকাত সুন্নাত ………..পরের 4 রাকাত ফরজ ……….এরপর 2 রাকাত সুন্নাত ……….3 রাকাত বিতের ……….এবং 2 রাকাত নফল ।। জুম্মা :– কাবলাল জুম্মা 4 রাকাত সুন্নাত । ………ফরজ 2 রাকাত । ………বায়াদাল জুম্মা 4 রাকাত সুন্নাত । ……..নফল বা সুন্নাত 2 রাকাত ।। গুরুত্বপূর্ণ তথ্যঃ নতুন নামাজীকে পুরানো নামাজের কাযা পড়তে হবে না: অনেকেই নামাজ পড়া শুরু করে না এই ভয়ে যে সারাজীবনে যা নামাজ miss হয়ে গেছে তার কাযা পড়তে হবে। হাদিস থেকে এরকম কোন বিধান পাওয়া যায় না। আপনি যদি আগে বেনামাজী হয়ে থাকেন আপনাকে আগের নামাজ কাযা পড়তে হবে না, কিন্তু আল্লাহ্র কাছে আন্তরিকতার সাথে তাওবাহ্ করতে হবে। তবে নিয়মিত নামাজী হওয়ার পর, কোন অপরাগতার কারণে যদি ২/১ বার কখনো নামাজ miss করে ফেলেন তখন সেটার কাযা পড়তে হবে । রাসূলুল্লা হ(সা) বলেন: যে ব্যক্তি দিনে- রাতে ১২ রাক’আত (ফরজ বাদে অতিরিক্ত ) নামাজ পড়বে তার জন্য জান্নাত ে একটি বাড়ি তৈরী করা হবে। এই ১২ রাক’আত হলো: যোহর নামাজে র আগে ৪, পরে ২ রাক’আত, মাগরিব ের নামাজে র পরে ২ রাক’আত, ইশা এর নামাজে র পরে ২ রাক’আত এবং ফজরের নামাজে র আগে ২ রাক’আত। – (তিরমিয ী ৩৮০, সহীহ আল জামি’ ৬৩৬২, হাদিসট ি সহীহ) আরবীতে নামাজের নিয়ত পড়ার দরকার নেই: আরবীতের নামাজের নিয়ত পড়ার বা মৌখিক ভাবে নিয়ত উচ্চারণ করার কোন বাধ্য বাধকতা নাই, বরং এটা বিদ’আত (বিদ’আত: ধর্মে নতুন সংযোজন যা রাসূলুল্লাহ(সা) বা তাঁর অনুগত সাহাবাদের দ্বারা প্রমাণিত নয়)। নিয়ত করা একটি অন্তর্গত ব্যাপার। আপনি মনে মনে নিজের ভাষায় নামাজের উদ্দেশ্য পোষণ করলেই নিয়ত হয়ে যাবে। নামাজে চার বার হাত তোলা: নামাজে উভয় হাত কানের লতি বা কাঁধ পর্যন্ত তোলাকে রাফ’উল ইয়াদাইন বলে। প্রচলিত ভাবে আমরা শুধু মাত্র ‘আল্লাহু আকবার’ বলে নামাজের শুরুতে হাত বাঁধার সময় কাঁধ পর্যন্ত দুই হাত তুলি। এটা ঠিক আছে, কিন্তু ইমাম বুখারীর সহীহ হাদিস অনুসারে রাসূলুল্লাহ(সা) আরও তিন সময় হাত তুলতেনঃ i) সামি’আল্লা হুলিমান হামিদাহ্ বলে রুকু’তে যাওয়ার সময় ii) রাব্বানা লাকাল হামদ্ বলে রুকু থেকে উঠার সময় iii) দ্বিতীয় রাক’আতের আত্তাহিয়্যাতু পড়ার পরে তৃতীয় রাক’আতের শুরুতে আল্লাহু আকবার বলে উঠে দাড়ানোর সময়। উল্লেখ্য, অতিরিক্ত এই হাত তোলা মুস্তাহাব, কেউ না তুললেও তার নামাজ হবে, কিন্তু যে তুলবে সে ইনশা আল্লাহ্ অনেক সাওয়াব পাবে। সিজদায় দু’আ করা: আমাদের অনেকেরই জানা নাই যে সিজদারত অবস্থায় নিজের ভাষায় দু’আ করা যায়। রাসূলুল্লাহ (সা) বলেছেন যে, বান্দা আল্লাহ্র সবচেয়ে কাছে থাকে সিজদারত অবস্থায়, তাই তিনি সিজদায় থাকাকালে বেশী করে দু’আ করতে বলেছেন (সহীহ্ মুসলিম)। তাশাহ্হুদের সময় তর্জনী তোলা: নামাজের দ্বিতীয় এবং চতুর্থ রাক’আতে বসে বসে তাশাহ্হুদ তথা আত্তাহিয়্যাতু পড়ার সময় আমরা কেউ ডান হাতের তর্জনী তুলি, কেউ তুলি না, আবার কেউ শুধু ‘আশহাদু আল্লা- ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ বলার সময় তর্জনী তুলি – এই ব্যাপারটা নিয়ে বেশীরভাগ মুসলিমই confused থাকে। সঠিক পদ্ধতি হলো যে, এক্ষেত্রে রাসূলুল্লাহ (সা) এর সুন্নাত দুইরকমঃ i) সমস্ত তাশাহহুদের সময় ডান হাতের মুঠি প্রায় বন্ধ করে তর্জনী কিবলার দিকে করে স্থির রাখা ii) সমস্ত তাশাহহুদের সময় ডান হাতের মুঠি প্রায় বন্ধ করে তর্জনী কিবলার দিকে করে স্থির না রেখে অল্প একটু উপরে নিচে করে নাড়তে থাকা। উল্লেখ্য যে, তর্জনী নাড়ানোর এই পদ্ধতিটিও মুস্তাহাব। অর্থাৎ, কেউ একেবারেই তর্জনী না উঠালে গুনাহগার হবে না, কিন্তু কেউ এটা করলে সাওয়াব পাবে ইনশা আল্লাহ্। মুনাজাত নামাজের অংশ নয়: মুনাজাতকে নামাজের অংশ মনে করা এবং নামাজ শেষে সম্মিলিতভাবে মুনাজাত করা বিদ’আত এবং স্পষ্ট ভ্রষ্টতা[১০]। নামাজ শেষে মুনাজাত না করে বরং সহীহ্ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত নিচের আমলটি করুন: i) ৩৩ বার সুবহান আল্লাহ্ (আল্লাহ্ মহাপবিত্র) পড়ুন ii) ৩৩ বার আলহামদুলিল্লাহ (সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ্র) পড়ুন iii) ৩৩ বার আল্লাহু আকবার (আল্লাহ্ সবচাইতে বড়) পড়ুন, iv) ১ বার পড়ুন – লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহদাহু লা শারিকালাহু, লাহুল মুল্কু ওয়া লাহুল হামদু, ওয়া হুয়া ‘আলা কুল্লি শাই ইন ক্বাদির (আল্লাহ্ ছাড়া কোনো মা’বুদ নাই, তিনি একক, তাঁর কোনো শরীক নাই। সকল বাদশাহী এবং সকল প্রশংসা তাঁরই জন্য। তিনিই সবকিছুর উপর ক্ষমতাশালী ।) ইমামের পিছনে সূরা ফাতিহা পড়া: নামাজের যে সব রাক’আতে ইমাম মনে মনে সূরা ফাতিহা পড়েন, যেমন, যোহর ও ‘আসরের নামাজে এবং মাগরিবের নামাজের তৃতীয় রাক’আতে, মুক্তাদি তথা ইমামের পিছনে যিনি নামাজ পড়ছেন তাকেও অবশ্যই মনে মনে সূরা ফাতিহা পড়তে হবে, নাহলে তার নামাজ হবে না [৫]। কিন্তু, যে সব রাক’আতে ইমাম সশব্দে সূরা ফাতিহা পাঠ করেন সেই সব রাক’আতে নিজে সূরা ফাতিহা না পড়ে মনোযোগ দিয়ে ইমামের কিরাআত শুনলেও চলবে। ইমামের পিছনে সশব্দে ‘আ- মিন’ বলা : ইমামের সূরা ফাতিহা পাঠ শেষে জাহরী নামাজে (যেমন: মাগরিব, ‘ইশা ও ফজর) মুক্তাদিকে ইমামের সাথে সশব্দে টেনে ‘আ-মীন’ বলতে হবে। সিররি নামাজে (যেমন: যোহর এবং ‘আসর) ইমাম ও মুক্তাদিকে মনে মনে টেনে ‘আ-মীন’ বলতে হবে। আশা করি, এই লেখাটি যারা পড়ছেন তাঁরা সবাই এবং আমি নিজে নামাজের প্রতি এখন থেকে আরও মনোযোগী হবো। আমরা যে-যেভাবেই এতদিন নামাজ পড়ে থাকি না কেন, আমাদের সবারই উচিত হবে নিজেকে সংশোধন করে নিয়ে সহীহ্ হাদিসের ভিত্তিতে নামাজ আদায় করার পদ্ধতি শিখে নেয়া।
6 months ago (February 1, 2021) 169 Views
Tags
Direct Link:
Share Tweet Plus Pin Send SMS Send Email

About Author (92)

Author

Nothing To Say....

Leave a Reply

You must be Logged in to post comment.

Related Posts



© 2021 All Right Received