HomeUncategorizedকিভাবে ০৬ মাসে ইংরেজিতে দক্ষ হয়ে উঠবেন।

কিভাবে ০৬ মাসে ইংরেজিতে দক্ষ হয়ে উঠবেন।

بسم الله الرحمن الرحيم

কিভাবে ০৬ মাসে ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠবেন?

কিভাবে ০৬ মাসে ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠবেন? আপনি কি আসলেই ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠতে চান? আপনার উদ্দেশ্য যদি তাই হয় তাহলে আপনি সঠিক জায়গাতেই এসে পৌঁছেছেন। আমরা আপনাকে আপনার কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌছে দেয়ার জন্যে যা যা আলোচনা করা প্রয়োজন সব কিছুই এই আর্টিকেলে আলোচনা করবো। আমাদের সাথেই থাকুন আর আগামী ০৬ মাসের মধ্যে ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠুন।

জরুরী কিছু কথা, যা জেনে রাখা আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ
ইংরেজী শেখার ধাপগুলো জানার আগে আপনাকে কয়েকটা ব্যাপার মাথায় রাখতে হবে। যেগুলো না বুঝে উঠতে পারলে আসলে আপনি খুব সহজে আমাদের ধাপগুলো অনুসরণ করে ইংরেজী শিখতে পারবেন না।

ইংরেজী একটি আন্তর্জাতিক ভাষা। আর এই বিদেশী ভাষাটি অনেক ক্ষেত্রেই আমাদের ক্যারিয়ারে উন্নতির পথে অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায়। আর আপনি যেহেতু এই আর্টিকেল পড়ছেন তার মানে হচ্ছে, আপনি নিজেকে ইংরেজীতে দক্ষ করে তুলতে চান।

সবাই চায়, দ্রুত ইংরেজী শিখতে তবে সেটা কিন্তু একেবারেই সহজ কাজ নয়। যদিও ইংরেজী শেখার দ্রুততম পদ্ধতি নিয়েই আজকে আমাদের এই লেখা। তবুও আমরা বলতে চাই যে, আমাদের দেখানো পথ যদি আপনি সঠিকভাবে অনুসরণ না করতে পারেন তাহলে কিছুতেই আপনি ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠতে পারবেন না।

ইংরেজী শেখার জন্যে বাজারে অনেক অনেক কোর্স আছে যেখানে আপনাকে অনেক ভাল ইংরেজী শেখানো হবে। যদিও ঘুড়ি লার্নিংএর স্পোকেন ইংলিশ কোর্সটি খুবই ভালো ইংরেজিতে কথা বলা শেখার জন্যে। তবুও আমাদের আজকের আলোচনা আপনাকে সঠিকভাবে ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠতে সাহায্য করবে। আসুন আর কথা না বাড়িয়ে মূল আলোচনায় যাওয়া যাক।

কিভাবে ৬ মাসে ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠবেন?
ইংরেজী কিংবা যেকোন নতুন ভাষা শেখার জন্যে আপনার মধ্যে তিনটি (০৩) জিনিস থাকতে হবে। ধৈর্য্য, অধ্যবসায়, এবং চর্চা। এই তিনটি ছাড়া আপনি কখনোই ইংরেজী শিখতে পারবেন না। ইংরেজীতে কথা বলা, লিখতে পারা, সঠিকভাবে পড়তে পারার জন্যে আপনাকে অনেক চর্চা করতে হবে।

এই চর্চার মাঝে কখনো কখনো ধৈর্য্য হারিয়ে ফেলার উপক্রম হতে পারে। কিন্তু আপনাকে ধৈর্য্য হারালে চলবে না। নিজের প্রতি নিজেকে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ থাকতে হবে যে “আমি ইংরেজী শিখবই।“

আসুন আমরা এবার ধাপে ধাপে কিভাবে ০৬ মাসে ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠবেন সেটা নিয়ে আলোচনা করি। আসলে আমরা কয়েকটা ধাপে আপনার করণীয়গুলো অল্প কথায় তুলে ধরার চেষ্টা করবো যা আপনার ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠতে সাহায্য করবে।

প্রথম ধাপঃ

কেন শিখতে চান ইংরেজী?
হ্যা আপনি ঠিকই পড়েছেন। আসলে আমরা যতক্ষন না একটা নির্দিষ্ট এবং স্ট্রং কারণ খুজে না পাই ততক্ষন কোন কাজের প্রতি ডেডিকেটেড হয়ে উঠতে পারি না। তাই ইংরেজী শেখা শুরু করার আগে আপনাকে একটা কারণ খুঁজে বের করতে হবে যেটা আপনাকে সবসময় ইংরেজী শিখতে উৎসাহিত করবে।

অনুপ্রেরণা একটা বিশাল জিনিস যেকোন জিনিস শেখার আগে। শেখার আগ্রহ নিজেই যদি আপনাকে অনুপ্রেরণা যোগায়, এর থেকে ভাল উৎসাহ আপনি আর কোথাও থেকে পাবেন না। তাই নিজেকে জিজ্ঞেস করুন, “কেন আপনি ইংরেজিতে দক্ষ হয়ে উঠতে চান?”

কারণটা খুঁজে পাওয়া মাত্র সেটাকে আপনার মাথায় ঢুকিয়ে ফেলুন, এবং খুব ভালভাবে, স্থায়ীভাবে ঢুকিয়ে ফেলুন যেন আপনাকে সর্বদা এই কারণটি ইংরেজী শিখতে একরকম বাধ্য করে ফেলে। মনে রাখবেন, আমাদের নিম্নলিখিত ধাপগুলো হয়ত আপনাকে বোর করতে পারে। কিন্তু বিশ্বাস করুন, এই কারণটা যদি আপনি মাথায় ভালভাবে ঢুকিয়ে নিতে পারেন তাহলে সেটা আপনাকে ধৈর্যশীল হতে ভীষনভাবে সাহায্য করবে।

দ্বিতীয় ধাপঃ

নির্দিষ্ট একটি লক্ষ্য নির্ধারন করা
একটি লক্ষয় নির্ধারণ করে ফেলুন। আপনি ইংরেজিতে আপনার দক্ষতা বৃদ্ধি করতে চাচ্ছেন। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে ইংরেজির ঠিক কোন কোন ব্যাপারে আপনি দক্ষ হতে চান? ইংরেজীতে অনর্গল কথা বলা শিখতে চান? নাকি লেখা শিখতে চান নাকি সঠিক উচ্চারণসহ পড়তে শিখতে চান। আরো আছে, আপনি কি ইংরেজি শুনে বুঝতে চান?

আমরা বলছি না যে শুধু একটা জিনিসই শিখেন। বরং আমাদের এই পদক্ষেপগুলো অনুসরণ করলে আপনি ইংরেজী লেখা, পড়া, বলা, এবং শোনা সবগুলিতেই দক্ষ হয়ে উঠতে পারবেন। একটি জিনিস মনে রাখবেন, তাড়াহুড়া করে করা কোন জিনিসই স্থায়ী হয় না। তাই আপনাকে নিজের লক্ষ্য নির্ধারণ করে ধাপে ধাপে এগিয়ে যেতে হবে।

তৃতীয় ধাপঃ

সহজ ইংরেজী রিসোর্স খুঁজে বের করা
এবার আপনার শেখার পালা। তবে তাড়াহুড়া নয়, বরং ধীরেস্থীরতার সাথে। প্রথমে আপনাকে সহজ ইংরেজী রিসোর্স খুঁজে বের করতে হবে। সেটা ইংরেজী মুভি থেকে শুরু করে, অডিও লেকচার, খেলার ধারাভার্ষ, পত্রিকা কিংবা অন্য যেকোন ইংরেজঈতে লেখা বই, জার্নাল ইত্যাদি।

এইগুলো নিয়ম করে চর্চা করতে হবে। শুনতে হবে এবং পড়তে হবে। তবে একসাথে নয়, নিয়ম করে একটা সময় শুনতে হবে। আবার অন্য একটি সময় পড়তে হবে। আর যা শুনেছেন তা মন দিয়ে শুনতে হবে। যেন পড়ার সময়, ওইসব শব্দের উচ্চারনগুলো কিছুটা হলেও মনে থাকে।

যত পারবেন ততই খুঁজে বের করুন রিসোর্সগুলো। দরকার হলে গুগলে সার্চ করে ডাউনলোড করে রাখুন। কারণ এই রিসোর্স কালেকশনের পরের ধাপেই আপনার এই রিসোর্সগুলোর প্রয়োজন হবে। তখন আপনি আর খুঁজে বেড়ানোর সুযোগ নাও পেতে পারেন। কারণ চর্চার সময়ে শুধু চর্চাতেই মনোনিবেশ করতে হবে। অন্যদিকে মন কে জড়িয়ে ফেলা চলবে না।

চতুর্থ ধাপঃ

যেধরনের ইংরেজী আপনি পছন্দ করেন তা খুঁজে বের করা
না, আপনার রিসোর্স কালেকশণ এখনো শেষ হয়নি। এই ধাপে আপনাকে আপনার পছন্দনীয় টপিকের ওপরে ইংরেজি লেখা সংগ্রহ করতে হবে। আমরা সবাই সেটাই পড়তে বা শুনতে ভালবাসি যেটা আমরা পছন্দ করি। তাই আপনি যদি সেগুলো সংগ্রহ করতে পারেন তাহলে সেটা আপনার জন্যে বোনাস পয়েন্ট।

আপনার পছন্দের যেটাই হোক, আপনি দ্বিধায় ভুগবেন না। সেটা আপনার পছন্দের তারকার একটি অডিও হতে পারে। কিংবা আপনার পছন্দের মুভি হতে পারে, আপনার পছন্দের পডকাস্ট হতে পারে। আপনার পছন্দের সবকিছু আপনি সংগ্রহ করে রাখুন এবং চর্চা করতে থাকুন।

পঞ্চম ধাপঃ

প্রচুর ইংরেজী শব্দের সাথে পরিচিত হওয়া
আপনি যখন ইংরেজী পত্রিকা পড়বেন কিংবা কোন মুভি বা অডিও শুনবেন তখন এমন অনেক শব্দ পাবেন যেগুলো আপনার কাছে অপরিচিত মনে হবে। সেগুলো সাথে সাথে খাতায় লিখে রাখুন এবং পরে ডিকশনারি ঘেঁটে সেসব শব্দ সম্পর্কে জানুন। মনে রাখবেন, যতবেশি ইংরেজী শব্দ আপনার ভান্ডারে থাকবে তত ভালভাবে আপনি ইংরেজি শিখতে পারেন, তত সহজে আপনি ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠতে পারবেন।

ষষ্ঠ পদক্ষেপঃ

হাল না ছেড়ে চর্চায় লেগে থাকা
প্রথমে আপনাকে শুনতে হবে। ছোট ছোট ইংরেজি লেকচার, বা অন্য যেকোন অডিও শুনতে হবে। আর এই শোনার ক্ষেত্রে আপনার মন, মাইন্ডকে শান্ত রাখতে হবে। একই অডিও বার বার শুনতে হবে। তবে এখনই কোনকিছু বুঝতে হবে না, শুধু শুনে যান।

তাছাড়া এই রিসোর্সগুলো সংগ্রহ করার পরেই আপনার সেগুলো ব্যবহার করা শুরু করতে হবে। আপনি ওইসব ইংরেজি অডিওগুলো শুনুন, মুভিগুলোর ভিডিও বন্ধ করে অডিও শুনুন। অল্প অল্প করে একই জিনিস বার বার শুনুন। এতে আপনার ভিতরে ইংরেজী ভাষার ব্যাপারে যেই আড়ষ্টটা আছে তা দূর হয়ে যাবে।

কোনভাবেই হাল ছাড়বেন না। দরকার হলে একটি রুটিন করে নিন, কখন কোনটা পড়বেন, কখন কোনটা চর্চা করবেন। এভবে কিছুদিন চলার পরে আপনি খেয়াল করবেন যে আপনি মনে মনে ইংরেজিতে কথা বলতে পারছেন। এভাবে মনে মনে নিজের সাথে নিজে চর্চা চালিয়ে যেতে হবে।

ধীরে ধীরে আপনি মনে মনে নিজের সাথে কথা বলতে পারবেন ভালভাবে। এর পরে আপনাকে নিজের সাথেই জোরে জোরে কথা বলে নিজেকে প্রস্তুত করতে হবে। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজের সাথেই নিজে বিভিন্ন টপিকে কথা বলার চর্চা চালিয়ে যেতে হবে।

শেষ ধাপে আপনাকে আপনার পরিচিত মানুষদের সাথে ইংরেজীতে কথা বলা শুরু করতে হবে। আপনি ফেসবুকে অনেক গ্রুপ পাবেন যেখানে অনেকেই নিজেদের সাথে ইংরেজীতে কথা বলে। এরকম কিছু মানুষের সাথে ফেসবুকে যুক্ত হয়ে তাদের সাথে কথা বলে নিজেকে ঠিক করে নিতে হবে।

নিজে নিজে যখন কথা বলবেন তখন গ্রামাটিক্যাল ভূলগুলোকে এড়িয়ে যেতে হবে। কারণ সময়ের সাথে সাথে আপনার ইংরেজীতে দক্ষতা বাড়বে এবং সাথে সাথে গ্রামাটিক্যাল ভূলগুলোর আস্তে আস্তে কমে যাওয়া শুরু করবে।

উপসংহার
ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে ওঠা কোন রকেট সায়েন্স নয়। আপনাকে ধৈর্য্য ধরে লেগে থাকতে হবে। দরকার হলে একটি রুটিন বানিয়ে নিন। কখন কোনটা চর্চা করবেন। নিজেকে নিজে চ্যালেঞ্জ করুন এবং চ্যালেং মিট করুন। ০৬ মাসের জন্য একটি রুটিন তৈরি করুন এবং সেই রুটিন অনুযায়ী প্রস্তুতি চালিয়ে যান। আপনি অবশ্যই ৬ মসে ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠবেন যদি আমাদের দেখানো ধাপগুলো অনুসরণ করলে।

আশা করছি আমাদের এই আর্টিক্যাল ভাল করে পড়ার পরে এখন আপনি জানেন, কিভাবে ৬ মাসে ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠবেন। চর্চা চালিয়ে যান এবং ধৈর্য হারাবেন না, তাহলেই আপনি খুবই জলদি ইংরেজীতে দক্ষ হয়ে উঠতে পারবেন।

3 months ago (April 8, 2021) 208 Views
Tags
Direct Link:
Share Tweet Plus Pin Send SMS Send Email

About Author (2)

Administrator

Admin I love you TipsTrickBD

Leave a Reply

You must be Logged in to post comment.

Related Posts



© 2021 All Right Received